আয়ারল্যান্ডে সংসদ সদস্য নির্বাচন পদ্ধতির অদ্যোপান্ত

0
392

আয়ারল্যান্ডে যে পদ্ধতিতে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয় বা বিভিন্ন নির্বাচন সংঘটিত হয় তাকে বলা হয় PR-STV যার অর্থ দাঁড়ায় সমানুপাতিক প্রতিনিধিত্ব – একক স্থানান্তরযোগ্য ভোট (Proportional Representation – Single Transferable Vote)।

আপনি যখন আয়ারল্যান্ডের কোন নির্বাচনে ভোট দিতে যাবেন তখন আপনার পছন্দ অনুযায়ী ক্রমানুসারে অধিক পছন্দের প্রার্থীকে ১, দ্বিতীয় পছন্দের প্রার্থীকে ২ এভাবে লিস্টে থাকা সকল প্রার্থীকে যথাক্রমে ৩, ৪, ৫…… হিসেবে ভোট দিতে পারবেন। আবার আপনি চাইলে মাত্র একজন প্রার্থীকে ১ নাম্বার ভোট দিয়ে বাকি গুলোকে খালি রেখে দিতে পারবেন। আর যদি আপনার অ-পছন্দের কোন প্রার্থী থেকে থাকে যাকে আপনি চান না নির্বাচিত হয়ে আসুক চাইলে শুধুমাত্র তাকে ব্যতীত অন্য সকলকে ১, ২, ৩ ক্রমানুসারে মার্ক করে যাবেন। যার মানে আপনার প্রথম পছন্দের প্রার্থী নির্দিষ্ট সংখ্যক ভোট পেয়ে পাশ করে ফেললে তার উদবৃত্ত ভোটগুলো অন্য কারো মোট ভোটার সাথে যুক্ত হবে। এর ফলে সকল ভোটারের ভোট একজন প্রার্থী নির্বাচিত হতে ব্যবহার হয়ে থাকে। এই পদ্ধতিতে ভোট অপচয় নুনূতম হয়ে থাকে। কারণ আয়ারল্যান্ড একক স্থানান্তরযোগ্য (Single Transferable Vote) ভোটের সাথে Proportional Representation নামে একটি নির্বাচনী ব্যবস্থা ব্যবহার করে (পিআর – এসটিভি, বা সংক্ষেপে PR-STV)। মনে রাখতে হবে একটি ব্যালট পেপারের একটি ভোটই গণনা করা হবে।

ব্যালটে যা থাকে:

প্রার্থীদের নামগুলি তাদের ছবি এবং তাদের দলের প্রতীকসহ (যদি তারা চান) ব্যালট পেপারে নামের বর্ণানুক্রমিক দেওয়া থাকে। আপনি আপনার প্রথম পছন্দের প্রার্থীর বিপরীতে ১, আপনার দ্বিতীয় পছন্দের বিপরীতে ২, আপনার তৃতীয় পছন্দের বিপরীতে ৩ লিখে ভোট দিন। আপনি ১ এর পরে থামতে পারবেন অথবা পছন্দ অনুযায়ী ২য়, ৩য়…….. নাম্বার হিসেবে মার্ক করতে পারবেন। আপনি যখন একাধিক পছন্দের সাথে ভোট দিযবেন, আপনি রিটার্নিং অফিসারকে নির্দেশ দিচ্ছেন যে আপনার পছন্দের প্রার্থী যদি বাদ পড়ে যায় বা ভোটের উদ্বৃত্ত হয়ে নির্বাচিত হন, আপনি চান আপনার ভোটটি আপনার দ্বিতীয় পছন্দ প্রার্থীর কাছে স্থানান্তরিত হোক ।

নিম্নবর্ণিত নির্বাচনসহ আয়ারল্যান্ডের সকল নির্বাচনে PR ব্যবহার করা হয়:

👉সাধারন নির্বাচন।
👉স্থানীয় নির্বাচন।
👉ইউরোপীয় নির্বাচন।
👉রাষ্ট্রপতি নির্বাচন।

PR নির্বাচনে ভোট দেওয়ার নিয়ম:

নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে আপনাকে স্ট্যাম্পড ব্যালট পেপার দেওয়া হবে। রিটার্নিং অফিসার কিছু পরিচয় বা পোলিং কার্ড দেখতে চাইতে পারেন। আপনি আপনার ভোটটি একটি গোপনীয় বুথে প্রদান করবেন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নামের বর্ণমালা অনুসারে তাদের ছবির পাশাপাশি দলের নাম ( রাজনৈতিক দলের অন্তর্ভুক্ত থাকলে) এবং তাদের দলের প্রতীক (কিছু ক্ষেত্রে) তালিকাভুক্ত করা থাকবে। আপনি পছন্দ করেছেন এমন প্রার্থী বা প্রার্থীদের পাশে আপনার পছন্দের নম্বর রেখে ভোট দিবেন। আপনি নিজের ইচ্ছামতো বেশি বা কম সংখ্যক প্রার্থীকে ভোট দিতে পারবেন।

আপনি যদি কেবলমাত্র একজন প্রার্থীকে ভোট দিতে চান তবে আপনার প্রার্থীর নামের পাশের বাক্সে ১ নম্বর চিহ্নিত করতে হবে। টিক বা ক্রস চিহ্ন দিয়ে বাক্সটি মার্ক করা উচিত নয়। এতে বুঝা যাবে না কে আপনার প্রথম পছন্দ বা কে দ্বিতীয় পছন্দ। ভোট দেওয়ার পর ব্যালট পেপারটি সুন্দরভাবে ভাঁজ করতে হবে যাতে আপনার ভোটটি দৃশ্যমান না হয় এবং ভাঁজ করা ব্যালট পেপারটি ব্যালট বাক্সে রেখে দিতে হবে। যদি ভোট প্রদানের সময় ব্যালট পেপারে কোন ভুল করেন তবে রিটার্নিং অফিসার তাঁর বিবেচনা সাপেক্ষে আপনাকে অন্য একটি ব্যালট পেপার দিতে পারেন। তবে আপনি যদি ইতোমধ্যে ব্যালট বাক্সে নিজের ব্যালট ফেলে দিয়ে থাকেন তাহলে, রিটার্নিং অফিসার আপনাকে আর ব্যালট পেপার দিতে পারবেন না। এক্ষেত্রে আপনাকে সচেতন হতে হবে।

বাজেয়াপ্ত ভোট:

যে ব্যালট পেপারগুলি গণনা করা যায় না তাদের নষ্ট ভোট বলে। ব্যালট পেপারগুলি নষ্ট হয়ে যেতে পারে যদি:

👉ব্যালট পেপার ফাঁকা বা খালি থাকে।
👉ভোটার তাদের পছন্দসই প্রার্থী বা প্রার্থীদের নাম্বার না করে টিক দিয়েছে বা অন্যকিছু চিহ্নিত করেছেন।
👉ব্যালট পেপারে লেখা বোঝা না গেলে।
👉ব্যালট পেপারে কোনও প্রার্থীর পাশে “১” নম্বর বা “এক” শব্দটি না থাকলে।
👉ব্যালট পেপারে রিটার্নিং অফিসারের সীল না থাকলে।
👉ভোটারের নাম লেখা বা কোনওভাবে পরিচয় দেওয়া থাকলে।
👉পছন্দের ধারাবাহিকতা পরিষ্কার না থাকলে, (উদাহরণস্বরূপ, ভোটার দুইটি পৃথক প্রার্থীর পাশে “১” বা একই নাম্বার লিখেছেন)।
👉প্রতিবাদ হিসাবে ভোটাররা ইচ্ছাকৃতভাবে তাদের কাগজগুলি নষ্ট করলে।

PR নির্বাচনে ভোট গণনা করা হয় যেভাবে:

ভোটগ্রহণ শেষ হয়ে গেলে সমস্ত ব্যালট বাক্স প্রতিটি আসনের জন্য একটি কেন্দ্রীয় গণনার জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়। ভোট গ্রহণের পরদিন সকাল ৯ টায় গণনা শুরু হয়। প্রতিটি ব্যালট বাক্স পৃথকভাবে খুলে ব্যালট পেপারগুলি গণনা করা হয়। একটি ব্যালট বাক্সের জন্য নির্দিষ্ট পরিমান ব্যালট প্যাপার ইস্যু করা থাকে। বাক্সটি খোলার পর পরই সবগুলো ব্যালট পেপার গণনা করে ওই বাক্সের জন্য ইস্যুকৃত ব্যালটের সাথে হিসেবে করা হয় যাতে ভোট প্রদান শেষ থেকে গণনার মধ্যবর্তী সময়ে ওই বাক্স থেকে কোনো ভোট সরানো বা যোগ করা হয়েছে কি না সেটা নিরুপন করা যায়।তারপরে প্রতিটি প্রার্থীর জন্য ব্যালট পেপারগুলি আলাদা আলাদা স্থানে রাখা হয়। ব্যালট পেপারগুলি গণনা করা এবং বাছাই করা হয় এবং সাথে সাথে নষ্ট ব্যালটগুলো ফেলে দেওয়া হয়।

নষ্ট ব্যালট ফেলে দেওয়ার পর যা থাকে সেগুলো বৈধ ভোট হিসেবে গণনা করা হয়:

এরপরে সঠিক ব্যালট পেপারগুলো কয়েক দফায় গণনা করা হয়। প্রার্থীরা নির্বাচিত বা বাজেয়াপ্ত হওয়ার সাথে সাথে, সেই প্রার্থীর ব্যালট পেপারের দ্বিতীয়, তৃতীয় (বা নিম্ন) পছন্দসমূহের ভোট গণনা করা হয়। সকল আসন পূরণ না হওয়া পর্যন্ত গণনা অব্যাহত থাকে।

কোটা গণনা করার নিয়ম।:

নির্বাচিত হওয়ার জন্য একজন প্রার্থীকে অবশ্যই নির্বাচনী এলাকার পূর্ব নির্ধারিত কোটা করে দেয়া সংখ্যক ভোট পেতে হবে। শেষ আসনটি এমন কোনও প্রার্থীর দ্বারা পূরণ করা যেতে পারে যিনি অন্য সকল প্রার্থী নির্বাচিত বা বিলোপ হওয়ার পরেও কোটায় পৌঁছাতে পারেননি। মোট বৈধ প্রাপ্ত ভোটকে ঐ নির্বাচনী এলাকার আসন সংখ্যার সাথে ১ যোগ করে সেই যোগফল দ্বারা ভাগ করে প্রাপ্ত নতুন যোগফলের সাথে আবার ১ যোগ করে কোটা গণনা করা হয় (যদি বহন করার জন্য কোনও সংখ্যা থাকে তবে তা অগ্রাহ্য করা হয়), এবং তারপরে ১ যোগ করা হয়।

উদাহরণ স্বরূপ, মোট বৈধ ভোট ২৫,০০০ হলে ঐ এলাকার ৪ টি আসনে, কোটা হলো ২৫,০০০ (মোট বৈধ পোল) ৪+১=৫ দ্বারা বিভক্ত (আসনের সংখ্যার চেয়ে ১ টি বেশি), যা ৫০০০. তারপরে যোগ হবে ১ এবং এই সংখ্যক (৫০০১) ভোট প্রতিজন প্রার্থীকে পেতে হবে পাশ করে আসতে হলে।

উদ্বিত্ব ভোট কী হয়:

কোন প্রার্থী যদি কোটার চেয়ে বেশি ভোট পান তবে তাদের উদ্বৃত্ত ব্যালট পেপারগুলি বাকী প্রার্থীদের কাছে স্থানান্তরিত হয়। অন্যান্য প্রার্থীরা নির্বাচিত প্রার্থীর ভোটে প্রাপ্ত কত সেকেন্ড (বা নিম্ন) পছন্দগুলির অনুপাতে উদ্বৃত্ত স্থানান্তরিত হয়। যদি কোনও ব্যালটে দ্বিতীয় পছন্দ প্রার্থী ইতোমধ্যে নির্বাচিত বা বিলোপ হয়ে যান, তবে তৃতীয় পছন্দটি ব্যবহার করা হয়। যদি প্রথম কোনও প্রার্থী নির্বাচিত হন, তবে তাঁর সমস্ত ভোটই উদ্বৃত্তের অনুপাত গণনা করতে ব্যবহৃত হবে যা প্রতিটি প্রার্থীকে দেওয়া হবে।

উদাহরণ স্বরূপ:

প্রার্থী A প্রথম গণনায় 6000 প্রথম পছন্দ ভোট পেলেন, কোটা ৫০০০। A ১০০০ ভোট বেশি পেয়ে নির্বাচিত হযন। A এর মোট ৬০০০ ভোটের মধ্যে ৩০% B কে তাদের দ্বিতীয় অগ্রাধিকার দিবে এবং তাদের ২০% এর দ্বিতীয় পছন্দ C হবে। B ৩০০ টি ভোট (১০০০ এর ৩০%) এবং সি ২০০ ভোট (১০০০ এর ২০%) গ্রহণ করে, যেখানে কোন প্রার্থী প্রথম গণনার পরে কোটায় পৌঁছে যায়, কেবলমাত্র ব্যালট পেপারগুলি যেগুলি তাদের কোটায় নিয়ে এসেছিল তা পরীক্ষা করা হয় (পূর্ববর্তী গণনা থেকে স্থানান্তরিত ভোট)।যদি একই সময়ে ২ বা ততোধিক প্রার্থী নির্বাচিত হন, তবে সবচেয়ে বেশি ভোট প্রাপ্ত প্রার্থীর উদ্বিত্ব ভোট আগে বিতরণ করা হবে।

অকৃতকার্য প্রার্থীদের যেভাবে বাদ দেওয়া হয়:

প্রথম দফা গণনা শেষে সকল প্রার্থী যদি কোটায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হয় , তবে সর্বনিন্ম সংখ্যক প্রাপ্ত ভোটের প্রার্থীকে বাদ দেওয়া হয় এবং তাদের সমস্ত ভোট বিতরণ করা হয় অধিক প্রার্থীদের ঝুড়িতে। একাধিক প্রার্থীকে এক দফা গণনার পরে বিলোপ করা যাবে যদি তারা স্পষ্টভাবে পরিষ্কার করে দেন যে তারা নির্বাচিত হতে পারবেন না।

নির্বাচনের ব্যয় পুনরুদ্ধার করা বা ক্ষতিপূরণ আদায়:

প্রার্থীরা তাদের নির্বাচনের ব্যয় উদ্ধার করতে পারবেন (জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ৮,৭০০ পর্যন্ত) যদি তারা…..

👉নির্বাচিত হয়।
👉নির্বাচিত হননি, তবে তাদের মোট প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা কোটার এক চতুর্থাংশের বেশি হয়।

কোটার একচতুর্থাংশ কম ভোট পেলে প্রার্থীদের অতিরিক্ত গণনার সুযোগ দেওয়ার বিধি রয়েছে। উপনির্বাচনে ক্ষতিপূরণ আদায়ের বিধান জাতীয় নির্বাচনের তুলনায় আলাদা।

পূণঃগণনা:

কোনও প্রার্থী যদি চান বা রিটার্নিং অফিসার যদি সিদ্ধান্ত নেন যে পুনঃনিরীক্ষণের দরকার, তবে পুনঃগণনের আদেশ দেওয়া হয়। একজন প্রার্থী কোন নির্দিষ্ট একক গণনা বা পুরো গণনা পুনরায় করার জন্য দাবী করতে পারেন। এর অর্থ হলো কেবল সর্বশেষ রাউন্ডে গণনা করা ভোটগুলি আবার গণনা করা হয় এবং প্রয়োজনে সংশোধন করা হয়। কোনও প্রার্থী মোট পুনঃনিরীক্ষণের জন্য জিজ্ঞাসা করতে পারেন। যদি কোনও ত্রুটি খুঁজে পাওয়া যায়, তবে ভুল হওয়ার সময় থেকেই সমস্ত ভোটই পুনরায় গণনা করা হয়। এটি সম্ভব যে ইতিমধ্যে নির্বাচিত বলে গণ্য করা প্রার্থীরা, পুনর্বিবেচনার কারণে তাদের ফলাফল পরিবর্তন হয়ে যেতে পারে। কোনও প্রার্থী ভোটের কোটায় পৌঁছে গেলে তাকে নির্বাচিত বলে গণ্য করা হয়। তবে, ফলাফল ঘোষণার পরে, পুনর্গণনা কেবল তখনই ঘটতে পারে যখন হাইকোর্টের আদেশ হয়। মোট গণনা শেষ হলে একজন প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয় এবং রিটার্নিং অফিসার ফলাফল ঘোষণা করেন।

এই ভাবে আয়ারল্যান্ডের সকল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের ব্যাপারে আপনাদের আরও আগ্রহ থাকলে আমাদের ইনবক্সে মেসেজ করে জানাতে পারেন। আমরা চেষ্টা করবো যথা সময়ে আপনাদের প্রয়োজন মিটাতে।

Facebook Comments Box

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here