সোর্ডস এ ইসলামী কমিউনিটির গোড়াপত্তন ও পরিচিতি – মশিউর রহমান

0
295

আজ থেকে বিশ’বছর আগের কথা যদি বলি তখন আয়ারল‌্যান্ডে বসবাসরত বহু মুসলিম ঈদের দিন খুব ভোরে দূর দূরান্ত থেকে ক্লনস’স্কি মসজিদে(Clonskeagh Mosque) ছুটে আসতেন ঈদের নামাজ আদায় করার জন‌্য। নামাজ শেষে সবাই একত্রিত হয়ে আনন্দ ভাগাভাগি করতেন। তখন ডাবলিনে “Dublin Mosque” ও “Clonskeagh Mosque” এই দুটি মসজিদ ছিল।

নব্বই দশকের শেষে এবং ২০০০ সালের পর বহু মুসলিম ইমিগ্রান্ট উন্নত জীবনের আশায় আয়ারল‌্যান্ডে বসবাস করতে আসেন। আজ তাদেরই পরিবার পরিজন বেড়ে আয়ারল‌্যান্ডে মুসলিম জন সংখ‌্যা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মসজিদ ভিত্তিক মুসলিম কমিউনিটির সংখ‌্যাও এখন চোখে্ঁ পড়ার মত।

Dublin airport বা Hospitals এ বহু ইমিগ্র‌্যান্ট মুসলিমের কাজের কারনে কিংবা লোকাল রেষ্টুরেন্ট ব‌্যবসার কারনেই হোক Swords মুসলিম কমিউনিটি গড়ে উঠেছে খুবই দ্রুত সময়ের মধ‌্যে। Swords Muslim Community একটি মসজিদ ও মাদ্রাসা ভিত্তিক কমিউনিটি হওয়ায় অভিবাবকরা এই অমুসলিম দেশে তাদের সন্তানদের নিয়ে আশার আলো দেখছেন।

Swords মুসলিম কমিউনিটি একটি আদর্শ এবং অনুকরনিয় মুসলিম কমিউনিটি। এই কমিউনিটির বৈশিষ্ট‌্য হলো এখানে দল মত বা আঞ্চলিকতার কোন স্থান নাই । বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন বর্ণের মুসলমানদের উদ্দীপ্ত অংশগ্রহন এবং আন্তরিকতাই এই কমিউনিটির মূল ভিত্তি।

এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে ২০১০ সালে Swords River Valley Community Centre এ গুটি কয়েক বাংলাদেশীদের হাত ধরে অনানুষ্ঠানিক ভাবে শুধুমাত্র প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়ের ব‌্যবস্থাপনার মধ‌্য দিয়ে Swords মুসলিম কমিউনিটির যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তিতে ২০১৪ সালে Swords Muslim Community কোম্পানী রেজিষ্ট্রেশনের মাধ‌্যমে Islamic Cultural Centre Swords নামে আত্বপ্রকাশ করে।

পাচ্ঁ ওয়াক্ত নামাজ:

বাংলাদেশী কমিউনিটির অন‌্যতম ব‌্যাক্তিত্ব বিশিষ্ঠ ব‌্যবসায়ি জনাব তারেক সালাহউদ্দিন ২০১৩ সালে তার ব‌্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিল্ডিংয়ের কিছু অংশ Swords মুসলিম কমিউনিটির জন‌্য ছেড়ে দেন এবং তখন থেকে শুরু হয় Swords মুসলিম কমিউনিটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা। Swords মসজিদের ঈমাম ও মাদ্রাসার শিক্ষক “মোহাম্মাদ জাবের হায়দার (From Somalia)” এর নেতৃত্বে শুরু হয় পাচ্ঁ ওয়াক্ত সালাতের জামাত এবং বাচ্চাদের কোরআন শিক্ষা কার্যক্রম। আলহাম্দু’লিল্লাহ, এই কার্যক্রম অদ‌্যাবধি চলছে।

জুমা’র নামাজ:

বিশিষ্ঠ ইসলামীক স্কলার ডঃ আহমেদ আল- হাব্বাস(From Palestine)২০১৩ সাল থেকে Swords মুসলিম কমিউনিটিকে ধর্মীয় নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন তিনি একই সাথে জুমা এবং ঈদের নামাজের ইমামের দ্বায়ীত্ব পালন করছেন। ডঃ আহমেদ আল- হাব্বাস সমগ্র Irish মুসলিম কমিউনিটিতে একজন অত‌্যন্ত সন্মানিত এবং প্রাজ্ঞ ইসলামীক স্কলার, তার একনিষ্ঠ প্রজ্ঞা ও ইসলামী হীকমা দিয়ে কোরআন সুন্নাহর আলোকে swords কমিউনিটির মুসলিমদের ঈমানকে মজবুত ও দৃঢ় করার মাধ‌্যমে মুসলিম উম্মাকে ইসলামের পথে রাখতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।

মাদ্রাসা:

বর্তমাানে Swords মাদ্রাসায় ছাত্র ছাত্রীর সংখ‌্যা প্রায় ৫০ জনের উপরে । এখানে সর্ব নিন্ম ৫ বছর বয়স থেকে ছাত্র ছাত্রী ভর্তি নেয়া হয়। সোমবার থেকে বৃহঃস্পতিবার পর্যন্ত চার দিন বিকাল ৫:৩০ থেকে রাত ৮:৩০ পর্যন্ত ক্লাস নেয়া হয়। ভর্তি ইচ্ছুক বাচ্চাদের অভিবাবক’গন ভর্তি ফরম,বেতন ও অন‌্যান‌্য তথ‌্যের জন‌্য মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

[ বি:দ্র:বর্তমানে করোনা মহামারীর কারনে ভার্চুয়াল মিডিয়াতে মাদ্রাসার ক্লাস নেয়া হচ্ছে]

রমজান তারাবীহ ও ইফতার:

Swords মসজিদে কমিউনিটির সকল সদস‌্য বিপুল উৎসাহ ও ধর্মিয় উদ্দিপনার মধ‌্য দিয়ে প্রতিবছর রমজানে মসজিদে একত্রিত হয়ে পাচ্ঁ ওয়াক্ত নামাজ এবং তারাবীহর নামাজ আদায় করে থাকেন। রমজানের প্রতিদিন রোজাদারদের জন‌্য ইফতারের আয়োজন করা হয়। এখানে উল্লেখ করতে হয় যে, অতিতে রমজানে বিভিন্ন দেশ থেকে হাফেজ এনে তারাবীহর নামাজ পড়ানো হত কিন্তু আলহাম্দুলিল্লাহ , বিগত ৩/৪ বছর যাবত Swords মাদ্রাসার হাফেজ ছাত্রগন তারাবীহর নামাজ পরিচালনা করছেন।

Family Eid Get Together:

কমিউনিটির সকল পরিবার পরিজনের একমাত্র আকর্ষন এই বাৎসরিক Family Eid get together. এই Eid Get Together প্রোগ্রামে মহিলা ও বাচ্চাদের জন‌্য সুস্থ বিনোদনের বিভিন্ন ব‌্যবস্থা সহ Dinner এর আয়োজন করা হয়। প্রতি বছর প্রায় ৫০টি পরিবার এই Family Eid get together অংশ গ্রহন করে থাকে।

মাসিক ইসলামীক সেমিনার:

Islamic Cultural Centre Swords এর ব‌্যবস্থাপনায় প্রতি মাসে প্রাধান ইমাম ডঃ আহমেদ আল- হাব্বাস (From Palestine) এর আলোচনায় কোরআন সুন্নাহর আলোকে ইসলামীক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। যেখানে জ্ঞান পিপাসু মুসুল্লিগন উপস্থিত হয়ে আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন।

ফিউনারেল ফান্ড গঠন:

Swords মুসলিম কমিউনিটির প্রায় ৬২ টি পরিবার এই ফিউনারেল ফান্ডের সদস‌্য । প্রত‌্যেক পরিবার এক’কালীন €১০০ ইউরো করে এই ফান্ডে জমা রেখেছে। এই ৬২ পরিবারের মধ‌্যে কোন একটি পরিবারের কোন সদস‌্য মারা গেলে ঐ পরিবারকে €৫০০০/- ইউরো নগদ অর্থ দেওয়া হবে ফিউনারেল খরচ হিসাবে। [বি:দ্র: এই ৬২ পরিবারের বাইরে কাউকে এই ফান্ড থেকে টাকা দেওয়া হবে না বলে সদস‌্যদের সিদ্ধান্ত। তবে, এর বাইরে সমাজের যে কোন ব‌্যাক্তি বা দেশের জন‌্য অর্থ দান করার ক্ষেত্রে Swords মুসলিম কমিউনিটি সব সময় উদার আছে এবং থাকবে। ]

Islamic Cultural Centre Swords:

২০১৪ সালে মাত্র তিন মাস সময়ের মধ‌্যে “তিন শত সত্তর হাজার” ইউরো দিয়ে Swords টাউনের প্রান’কেন্দ্রে ০.৬ একর জমির উপর একটি বিল্ডিং ক্রয় করার মধ‌্য দিয়ে Swords মুসলিম কমিউনিটি নিজেদের একটি ভিত তৈরী করতে সক্ষম হয়। এখানে একটি কথা না’বললেই নয়, এই বিল্ডিংটি ক্রয় করার সময় আয়ার‌্যান্ডের সমস্ত বাংলাদেশী কমিউনিটি অর্থ দানের মাধ‌্যমে হাত বাড়িয়ে দেয় যার কারনে অল্প সময়ে এই বিরাট অংকের অর্থ সংগ্রহ করা সম্ভব হয়। বর্তমানে প্লানিং পার্মিশান পাওয়ার পর মসজিদের অভ‌্যন্তরীন কাজ চলছে। কাজ শেষে অচিরেই মুসল্লিদের জন‌্য Islamic Cultural Centre Swords খুলে দেওয়া হবে, ইনশা’আল্লাহ।

আমারা কেবল শুরু করলাম, আরো বহু দূর যেতে হবে। নিজেদেরকে এবং আমাদের সন্তানদেরকে “সিরাতুল মুস্তাকিম”এর উপর থাকতে , ইসলামের ছায়া তলে রাখতে এবং ভবিষ‌্যৎ মুসলিম উম্মাকে সেই পথ দেখাতে আল্লাহ সুব’হানাহু তা’য়ালা যেন আমাদের সকল কাজকে সহজ করে দেন,আমীন।

Facebook Comments Box