নাটকীয় পরিস্থিতির মাঝে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ স্থগিত

0
149

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যাচই মানা হয় আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের ম্যাচকে। পুরো বিশ্ব এ দুই দলের সমর্থক অনেক বেশি থাকায় এর আকর্ষণও বেশি। কিন্তু সেই ম্যাচেই রীতিমতো কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটেছে। ম্যাচ শুরুর চার মিনিট পর স্থগিত করে দিয়েছে ব্রাজিলিয়ান স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তারা।

রোববার রাতে ব্রাজিলের সাও পাওলোতে মুখোমুখি হয় আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল। স্থগিত হওয়ার আগ পর্যন্ত গোলশূন্যভাবে চলছিল ম্যাচটি।

সাত মিনিট যেতে না যেতেই ব্রাজিলের জাতীয় স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধান এজেন্সির একাধিক কর্তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক সদস্যদের নিয়ে হানা দেন মাঠে। হুট করে মাঠে ঢুকে পড়েন কোয়ারেন্টাইন না মানা খেলোয়াড়দের আটকের জন্য। খেলোয়াড় ও স্বাস্থ্য সংস্থার কর্তাদের মধ্যে হাতাহাতিও হয়েছে। এই অভূতপূর্ব কাণ্ডের জন্য ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে ম্যাচ স্থগিতের সংবাদ দিয়েছে আর্জেন্টিনার ফুটবল সংস্থা।

মূলত ঝামেলাটা হয় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ থেকে আসা চার আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়কে নিয়ে। তাদের রাতেই ব্রাজিল ছাড়ার আদেশ দিয়েছিলেন দেশটির কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাদের নির্দেশ উপেক্ষা করে সেই চার খেলোয়াড়কে মাঠে নামিয়েছিল আর্জেন্টিনা। তাতেই বাঁধে বিপত্তি। স্থানীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লোকজন এসে বাগড়া দেয়। স্থগিত হয়ে যায় ম্যাচটি।

অথচ ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আর্জেন্টিনার হয়ে খেলতে এসেছিলেন সে লিগে খেলা আর্জেন্টিনার চার খেলোয়াড় -অ্যাস্টন ভিলার এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া ও এমিলিয়ানো মার্তিনেজ এবং টটেনহাম হটস্পার্সের জিওভান্নি লো সেলসো ও ক্রিস্তিয়ান রোমেরো। ক্লাবের হয়ে কমপক্ষে দুই ম্যাচ দর্শক হয়ে থাকতে হবে তাদের। ভেনেজুয়েলায় বাঁধাহীন ভাবে খেললেও ব্রাজিলে নিষেধাজ্ঞার খড়গে পড়ে তারা।

ব্রাজিলে যাওয়ার পর সাও পাওলোর স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, করোনাভাইরাসের ব্রাজিলিয়ান নিয়ম অনুযায়ী ব্রিটেন, নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত থেকে সরাসরি প্রবেশের অনুমতি নেই ব্রাজিলের বাইরের লোকদের। বিশেষ ক্ষেত্রে বিষয়টিতে ছাড় দেওয়া হয়। তাও ব্রাজিলে প্রবেশের আগে কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বিশেষ অনুমতি নিয়ে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন করতে হবে।

কিন্তু আর্জেন্টিনার সে চার খেলোয়াড় ইংল্যান্ড থেকে সরাসরি দেশে ফেরার পর গিয়েছিলেন ভেনেজুয়েলায়। সেখানে এক ম্যাচ খেলার পর আসেন ব্রাজিলে। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন না করায় তাদের দেশের ফ্রিতে নির্দেশ দিয়েছিল দাবি সাও পাওলোর স্বাস্থ্য বিভাগ।

কাতার বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে বর্তমানে সাত ম্যাচের সবকটিতে জিতে শীর্ষে রয়েছে ব্রাজিল। ৭ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে তাদের পরেই আছে আর্জেন্টিনা।

Facebook Comments Box