২১শে বই মেলার বিশেষ আকর্ষণ: কবি ও লেখিকা পরিচিতি: আয়শা আহমেদ।

0
43

পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে অবস্থিত ক্ষুদ্র জনসংখ‌্যার দ্বীপ রাষ্ট্র আমাদের এই আয়ারল‌্যান্ড। এখানে ১০/১২ হাজার বাংলাদেশী মানুষের বসবাস। আগামী কাল ১৫ই মে রবিবার বাংলাদেশী কমিউনিটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বহুল প্রতিক্ষীত প্রানের মেলা “২১শে বই মেলা ২০২২”। বই মেলাটি অনুষ্ঠিত হবে Dublin City University তে, সকাল ১১টা থেকে শুরু করে সন্ধ‌্যা পর্যন্ত মেলা চলবে। বইমেলা হলো মানুষের মিলনমেলা।


২১শে বই মেলার বিশেষ আকর্ষনের মধ‌্যে থাকছে কবি ও লেখকদের জন‌্য বিশেষ সেমিনার। আয়ারল‌্যান্ডে ও ইংল‌্যান্ডে বসবাসরত বাংলাদেশী কবি, কথাসাহিত‌্যিক ও লেখক- লেখিকাগন মেলাকে আলোকিত করবেন।এবারের বই মেলায় থাকছে কবি ও কথাসাহিত্যিক আয়শা আহমেদের “কবিতার কথা ” নামে একটি বইয়ের ষ্টল।

কবি ও কথাসাহিত্যিক আয়শা আহমেদ প্রধানত একজন কবি। সমাজ চিন্তক। মানবতাবাদী মহীয়সী নারী। জন্ম হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলায়। মামার বাড়ী জলজোছনার শহর সুনামগঞ্জ। বৃন্দাবন কলেজে পড়াশোনা। ‘৭২ সাল থেকে যুক্তরাজ্যে। নিরন্তর লিখে চলেছেন। কবিতা, মুক্তিযুদ্ধের পটভূমিকা নিয়ে তার লেখা , গল্প, প্রবন্ধ ও ফিচার নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়। তিনিই প্রথম বাঙালি যিনি ইংল্যান্ডের চেস্টার সিটি ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে ম্যাজিস্ট্রেট হিসাবে সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেন। তার সুবৃহত উপন্যাস সায়ান্তের গোধূলি চৈতন্য থেকে ফেব্রুয়ারী ২০২২ এ প্রকাশিত হয়।


আয়শা আহমেদের এই পর্যন্ত ৭টি বই প্রকাশিত হয়েছে এর মধ‌্যে চারটি কবিতার তিনটি উপন‌্যাস।
প্রকাশিত গ্রন্থসমুহ:
তৃষিত অরুনিমা(কবিতা)
শেষ বিকেলের কবিতা (কবিতা)
জোৎস্নায় বাজে সুর (কবিতা)
এ টাচ অব ডাস্ক( ইংরেজি কবিতা)
পায়ে পায়ে প্রহর(উপন‌্যাস)
পৃথিবীর রং বদলায়(উপন‌্যাস)
সায়হ্নের গোধূলি (উপন‌্যাস)

আয়শা আহমেদ ব‌্যাক্তিগত কারনে এবার বই মেলায় উপস্থিত হতে পারছেন না তবে পাঠাক- পাঠিকাদের জন‌্য তিনি ২১শে বই মেলায় বই পাঠিয়ে দিয়েছেন। “কবিতার কথা” নামক বইয়ের ষ্টলে তার বইগুলো পাওয়া যাবে।


বই মানুষের পরম বন্ধু, মানব সভ্যতার অন্যতম প্রাণসভা। বই অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যতের মাঝে তৈরি করে সেতুবন্ধন। বই সত্যের পথে, ন্যায়ের পথে পরিচালিত করে মানুষকে বিশুদ্ধ করে তোলে। ম্যাক্সিম গোর্কি বলেছেন- “আমার মধ্যে উত্তম বলে যদি কিছু থাকে তার জন্যে আমি বইয়ের কাছে ঋণী।” মানুষ জ্ঞানতৃষ্ণা নিবারণের জন্য বইমেলায় ছুটে যায়। বইমেলায় প্রতিদিনের ব্যস্ততা ভুলে মানুষ আনন্দস্রোতে অবগাহন করে। বইমেলার আসল উদ্দেশ্য হলো বইকেনায় মানুষকে আগ্রহী করে তোলা।


আয়োজকগন আশা করছেন এবারের মেলায় সারা আয়ারল‌্যান্ড থেকে বিপুল সংখ‌্যক লোকের সমাগম ঘটবে। সবাইকে মেলায় আমন্ত্রন জানিয়ে মেলাকে সফল করতে সকলের প্রতি সহযোগীতার আহবান জানিয়েছেন আয়োজকগন।

Facebook Comments Box