সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ!

0
327

শায়লা শারমিন – ডাবলিন

১৯২৫ সাল, টোকিওর শিবুয়া স্টেশনের কাছে থাকতেন প্রফেসর হিদেসাবুরো উএনো। তিনি একদিন একটা কুকুর রাস্তায় কুড়িয়ে পান যার গলার বেল্টে একটা নাম্বার লেখা ছিলো হাচি(০৮). তাই তিনি কুকুরটির নাম রাখেন হাচিকো। প্রফেসর এবং হাচিকোর সম্পর্ক এক অদ্ভুত বন্ধনে পরিনত হয় ।

পরবর্তীতে হাচিকো আর প্রফেসর এর উপর সত্যি ঘটনা অবলম্বনে
২০০৯ সালে আমেরিকা একটা ছবি তৈরি করে। ছবির নাম Hachi a dogs tale. অভিনয় করেছেন রিচার্ড জিয়ার।

আমাদের ইয়ন
আমাদের ইয়ন

ঘটনা হলো রিচার্ড জিয়ার রোজ সকাল বেলা ট্রেনে চেপে তার কাজের জায়গায় যান এবং সন্ধ্যায় ফেরেন।
তার পোষা কুকুর হাচিকো রোজ তাকে সকালে স্টেশনে ছেড়ে যায় এবং রোজ সন্ধ্যায় স্টেশনে এসে নির্দিষ্ট একটা জায়গায় তার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। প্রফেসর ফিরলে তবেই তাকে নিয়ে বাড়ি ফেরে।

হঠাৎ একদিন প্রফেসর হার্ট এটাকে তার কাজের জায়গাতেই মারা গেলেন। তিনি আর বাড়ি ফিরলেন না। তার জন্য ঐ রেল স্টেশনে একই জায়গায় হাচিকো অপেক্ষা করেছিলো তার জীবনের বাকি ৯ বছর ৯ মাস ১৫ দিন। কেউ তাকে সেখান থেকে নড়াতে পারেনি। নয় বছর হাচিকোও সেই ট্রেন স্টেশনেই মনিবের জন্য অপেক্ষা করতে করতে মারা যায়।

ছবিটা আমি বহুবার দেখেছি। যতোবার দেখেছি ততোবারই ভীষন মন খারাপ হয়েছে। অঝরে কান্নাও করেছি।

শিবুয়া ষ্টেশনে হাচিকোর স্টাচু
শিবুয়া ষ্টেশনে হাচিকোর স্টাচু

হাচিকোর একটা মূর্তি রয়েছে শিবুয়া স্টেশনে। ষ্টেশনের একটি এক্জিট এর নাম হাচিকো এক্জিট। হাচিকোর ৮০ তম মৃত্যুবাষিকীতে হাচিকো আর প্রফেসর এর একটি মূর্তি গত ৮ই মার্চ ২০১৫ তে টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ে স্হাপন করা হয়।

হাচিকো এবং প্রফেসর
হাচিকো এবং প্রফেসর

এখন বলি আমাদের ইয়ন এর কথা । ইয়ন কে আমরা আনি একমাস বয়সে । মাইমুনা বড়ো হয় যাওয়াতে আমাদের বাসাটা ছিল ঠান্ডা চুপচাপ একটা বাসা । ইয়ন বাসায় প্রাণ নিয়ে আসে । ইয়ন চিৎকার , খেলা ধুলায় বাসা মাতিয়ে রাখতো । আমরাও সারাক্ষন ইয়ন কই? ইয়ন কি করে ? ইয়ন খাইছে নাকি , ইয়নকে হাটতে নিতে হবে ,ভ্যাকসিন দিতে হবে , গ্রুমিং করতে নিতে হবে , এই চলত। আমার সাথে ইয়ন বেশি ঘনিষ্ট ছিল । আমি যতক্ষন বাসায় থাকতাম আমার পিছে পিছে হাটত, আমর সাথে ঘুমাইতো । আমি কাজ থেকে ফিরলে ইয়ন এর সে কি আনন্দের প্রকাশ! অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ইয়ন কে দিয়ে দেই। আজকে তিন বছর ইয়ন আমাদের সাথে নাই। কিন্তু এমন কোন দিন নাই আমি আর মাইমুনা
ইয়ন কে মনে না করি , কষ্ট না পাই!

কুকুর অবুঝ প্রানী। কুকুরের এই ভালোবাসা বন্ধুর মতো , পরিবারের সদস্যের মতো। এই ভালোবাসা আনুগত্যের , শ্রদ্ধার।

আমরা মানুষ , সৃষ্টির সেরা জীব।কোথায় আমাদের বন্ধুত্ব ! কোথায় শ্রদ্ধা , ভালোবাসা !
সমাজে আমরা বছরের পর বছৰ একসাথে বাস করেও সামান্য কারণে একে অন্যকে ছোট করে কথা বলি । মানীজনের মান রাখছি না বরং ছোট করে কথা বলতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করি না।

প্রাণী হিসাবে আমরা আসলেইকি সেরা ? কেন আমাদের মন হিংসা বিদ্বেষে ভরা ? কোথায় আমাদের মনুষ্যত্ব ? আমরা কি হাচিকো, ইয়ন এর কাছ থেকে ভালোবাসা, বন্ধুত্ব নতুন করে শিখব!

 

Facebook Comments Box