সাবমেরিন বিধ্বংসী টর্পেডোর সফল পরীক্ষা চালিয়েছে ভারত

0
307

অ্যান্টি-সাবমেরিন মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণ করেছে ভারত। সমুদ্রের গভীরে লুকিয়ে থাকা শত্রুপক্ষের ডুবোজাহাজ নিমিষে ধ্বংস করে দিতে পারে এই মিসাইল। ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও) এই মিসাইল তৈরি করেছে।

সোমবার ওড়িশার হুইলার উপকূল থেকে এই সুপারসনিক মিসাইল অ্যাসিস্টেড রিলিজ টর্পেডো (স্মার্ট) উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। প্রতিরক্ষা সূত্রে খবর, দূরপাল্লার এই ক্ষেপণাস্ত্র সঠিক নিশানায় গিয়ে লক্ষ্যবস্তুকে আঘাত করেছে। লঞ্চ প্যাড থেকে ক্ষেপণাস্ত্রের উৎক্ষেপণ, গতিবেগ নিয়ন্ত্রণ ও লক্ষ্যবস্তুতে টার্গেট, সবকিছুই সঠিকভাবে হয়েছে।

অ্যান্টি-সাবমেরিন মিসাইলের সফল উৎক্ষেপণের প্রশংসা করে টুইট করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। তিনি বলেছেন, ‘ডুবোজাহাজ বিধ্বংসী মিসাইলের পরীক্ষায় সফল ডিআরডিও। অ্যান্টি-সাবমেরিন ওয়ারফেয়ারে বড় হাতিয়ার হতে চলেছে এই ক্ষেপণাস্ত্র। ডিআরডিওকে অভিনন্দন জানাই।’

‘স্মার্ট’ টর্পেডো ওজনে হাল্কা। অনেক দূর পর্যন্ত টার্গেটে আঘাত হানতে পারে এই ক্ষেপণাস্ত্র। দিনে ও রাতে, আবহাওয়ার যে কোনো পরিস্থিতিতে এই ক্ষেপণাস্ত্রের নিক্ষেপ সম্ভব। এতে আছে শক্তিশালী রাডার, ইলেকট্রো অপটিক্যাল সিস্টেম। যা ক্ষেপণাস্ত্রটিকে নির্ভুল লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সহায়তা করে। ক্ষেপণাস্ত্রটির পাল্লা প্রায় সাড়ে ৩৫০ নটিক্যাল মাইল (৬৫০ কিলোমিটার)।

ভারত সমুদ্রের গভীরে লড়াই চালানোর জন্য অস্ত্রশস্ত্র তৈরির চেষ্টা করছিল গত এক দশক ধরেই। এর আগে বিদেশ থেকে টর্পেডো কেনা হচ্ছিল। কিন্তু গত এক দশকের চেষ্টায় যে টর্পেডো ডিআরডিও তৈরি করেছে, তা পৃথিবীর সেরা টর্পেডোগুলোর অন্যতম বলে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। স্টেল্থ সাবমেরিনকেও নিমেষে ধ্বংস করতে সক্ষম এই ক্ষেপণাস্ত্র।

Facebook Comments Box