নীতিভ্রম – এম এ বুলবুল ইসলাম

0
324
M A Bulbul Islam

নীতিভ্রম – এম এ বুলবুল ইসলাম


M A Bulbul Islam

প্রথম পর্ব: পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি। এও সত্য যে, ব্যক্তির নৈতিকতার উন্নয়ন ব্যতিরেকে কোন জাতির উন্নয়ন একেবারেই অসম্ভব। ইউরোপে, বিশেষ করে আয়ারল্যান্ডে ডাক্তার, নার্স বা স্বাস্থ্য কর্মীদের ডিউটি লম্বা সময়ের, ১২ ঘন্টার। ডাক্তারদের সর্বোচ্চ পদবি কনসালটেন্ট যার অধীনে কয়েকজন ডাক্তার থাকেন। পূর্ব নির্ধারিত appintment অনুসারে উপস্থিত রোগীদের সাক্ষাৎকার নেন, কনসালটেন্ট এবং অধীনস্থ অন্য ডাক্তারগন।

ডাক্তার প্রথমে রোগীর medical history, নথি পড়েন এবং মনোযোগ সহকারে রোগীর বিস্তারিত সমস্যাগুলো শুনেন এবং প্রাসঙ্গিক বিবিধ প্রশ্ন করে prescription, পরামর্শ দেন। অধীনস্থ ডাক্তারগন রোগীকে prescription, পরামর্শ দেয়ার আগে কনসালটেন্টের consent, সম্মতি নিয়ে থাকেন।

ডাক্তারগন ডিউটি শেষে হাসপাতাল ত্যাগ করে যার যার মত চলে যান- কিন্তু কনসালটেন্ট? তিনি শিফ্ট শেষে হাসপাতাল ত্যাগ করেন বটে তবে দায়ীত্ব থেকেই যায়। পরবর্তী শিফ্টে তাঁর অধীনস্থ ডাক্তারগন তাঁকে ফোন করে prescription, পরামর্শ প্রদানের consent, সম্মতি নেন। এছাড়া, ইমার্জেন্সি হলে তাঁকে যখনতখন হাসপাতালে যেতেও হয়।

মোদ্দাকথা কনসালটেন্ট, ২৪ ঘন্টাই দায়ীত্ব পালন করেন অত্যন্ত নিষ্ঠা, সততা ও বিনয়ের সাথে। কনসালটেন্ট বিভাগীয় প্রধান, অনেক বড় পদ, মাইনেও অনেক। পাশাপাশি দায়ীত্ব বা বিড়ম্বনাও অনেক, মানতেই হবে।

এমন উদাহরণ উন্নত দেশের প্রতিটি সেক্টরে, সর্বত্র। অনুন্নত, বিশেষ করে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট সম্পূর্ণ উল্টো বা বিপরীত। বড় কর্মকর্তারা চেয়ারে বসে খোশগল্প বা অহেতুক কর্ম সময় কাটান। আর নীচের কর্মচারীরা কাজ করে ফুরসত পায় না।

উন্নত দেশের মানুষের মানসিকতা উন্নত তাই তাদের মাইনে বা উপার্জন শতভাগ পরিশুদ্ধ করে নেন। আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে, কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে?

নিজস্ব অভিমত,
এম এ বুলবুল ইসলাম।
২৭৷০১৷২০২১

Facebook Comments Box