আগামীকাল শুক্রবার ডাবলিনে তানজিদ ইসলাম সুমনের জানাযা ও দাফন।

0
1101

তানজিদ ইসলাম সুমন ২০০৪ সালে জীবন জীবিকার সন্ধানে আয়ারল‌্যান্ড আসেন মাত্র ২১ বছর বয়সে। টগবগে এক তরুন, দু’চোখ্ঁ ভরা ছিল তার স্বপ্ন। কাজ করতেন ডাবলিনে, থাকতেন বন্দ্ধুদের সাথে ডাবলিনেই। সদা হাস‌্যোজ্জ্বল ভদ্র ও ধার্মীক একজন মানুষ ছিলেন এই তরুন।

নারায়নগঞ্জের গোগনগর উত্তর মসিনাবন্দ নিবাসী মৃত বাদশা মেম্বার বেপারী সাহেবের ছেলে এই তানজিদ ইসলাম সুমন। চার ভাই ও দুই বোন। ভাইদের মধ‌্যে সুমন ছিলেন তৃতীয়। আয়ারল‌্যান্ডে ১৭ বছর তার প্রবাস জীবন। বাংলাদেশে বিয়ে করেছিলেন বছর দু’এক আগে। এরই মধ‌্যে বাংলাদেশে বেড়াতে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন, ঢাকায় ডাক্তারের কাছে গেলে ডাক্তার তাকে জানান তিনি Stomach cancer এ আক্রান্ত।

সুমন দেরি না করে আয়ারল‌্যান্ডে চলে আসেন, দীর্ঘ একবছর যাবত ডাবলিন মেটার হাসপাতালে চলে তার চিকিৎসা। অবশেষে ক‌্যানসারের কাছে হার মানেন এই তরুন।


তার দীর্ঘ ১৭ বছরে এই আয়ারল‌্যান্ডে রয়েছে আনেক বন্ধু বান্ধব। সুমন মারা যাওয়ার পর তার বন্ধু মহলে নেমে আসে শোকের ছা্ঁয়া। তাদেরই একজন জনাব ফুয়াদ হাসান টিপু ছিলেন সুমনের খুবই কাছের বন্ধু এবং বহু দিনের Housemate । ফুয়াদ হাসানের সাথে কথা বলে জানা যায়, তানজিদ ইসলাম সুমন ছিলেন একজন ভদ্র ও বিনয়ী একজন মানুষ। ফুয়াদ হাসান আরো জানান সুমনের বৃদ্ধ মা বাংলাদেশে খুবই অসুস্থ অবস্থায় আছেন, তার ছেলের চলে যাওয়া হবে তার জন‌্য এক বড় শোক।

তানজিদ ইসলাম সুমন এদেশে এসে এক পোলিশ রমনীকে বিয়ে করেছিলেন, তাদের আছে ৭ বছরের এক পুত্র সন্তান। মৃত‌্যুর আগ পর্যন্ত তার এই ছেলের সাথে সবসময় সুসর্ম্পক ছিল। ছেলেকে তিনি খুবই ভালোবাসতেন।

সুমনের ইচ্ছে মোতাবেক তাকে আয়ারল‌্যান্ডেই দাফন করা হবে। সব কিছু ঠিক ঠাক মত থাকলে আগামী কাল বাদ জুমা ক্লনস্কি মসজিদে Clonskeagh Mosque এ হবে তার নামাজে জানাযা। এর পর Newcastle Burial Ground এ হবে তার দাফন।

প্রবাসে একাকি ক‌্যান্সারের মত ব‌্যাধিকে মোকাবেলা করে মৃত‌্যু বরণ করা অত‌্যন্ত করুন। মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ সুবহানাহু তায়ালা যেন তানজিদ ইসলাম সুমন কে ক্ষমা করে দিয়ে জান্নাতুল ফেরদাউসে দাখিল করেন এই দোয়া করি।

Facebook Comments Box