আয়ারল্যান্ড প্রবাসী ক্ষুদে বিজ্ঞানী আবুতালহার যুগান্তকারী আবিষ্কার

যে প্রযুক্তি নিয়ে আসতে পারে যুগান্তকারী পরিবর্তন

0
1838

কেমন হবে, যদি আপনি কোনো নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট ছাড়াই বার্তা প্রেরণ করতে পারেন একজন অন্যজনকে? এমনই প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন আয়ারল্যান্ডে অবস্থিত বাংলাদেশি বংশদ্ভুত ক্ষুদে বিজ্ঞানী আবুতালহা আলম। তার উদ্ভাবিত আবিষ্কারে একে অপরকে বার্তা প্রেরণ করতে পারবে কোনো ইন্টারনেট ও মোবাইল নেটওয়ার্কের সাহায্য ছাড়াই।

আবুতালহা আলমের প্রজেক্টের নাম ব্রিজএইড (BrigaidNet). BrigaidNet হচ্ছে এমন একটি ডিভাইস যার মাধ্যমে এক ফোন থেকে আরেক ফোনে মেসেজ আদান প্রদান করতে পারবে কোনো ইন্টারনেট কিংবা মোবাইল নেটওয়ার্কের সহযোগিতা ছাড়াই। শুধুমাত্র ডাউনলোড করে নিতে হবে তাদেরই উদ্ভাবিত অ্যাপের সহায়তায়।

আবুতালহা আলমের এই প্রযুক্তির টার্গেট হচ্ছে বাংলাদেশ ও অন্যান্য অনুন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলার জন্য, যেখানে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখনো ইন্টারনেট ও মোবাইল নেটওয়ার্ক পর্যাপ্ত নয়। এছাড়া প্রান্তিক শ্রেণীর দরিদ্র জনগোষ্ঠী যারা মোবাইলের খরচ বহন করতে হিমশিম খাচ্ছে।

এ প্রযুক্তির দুটি গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় দিক হচ্ছে। ইন্টারনেট ও নেটওয়ার্ক অপ্রতুল অঞ্চলে সেবা প্রদান ও বিনামূল্যের এ সেবা দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে ছড়িয়ে দেয়া।

নীল আর্মস্ট্রং চাঁদে পদার্পণ করে বলেছিলেন, “That’s one small step for man, one giant leap for mankind.” মানে হচ্ছে “এটি মানুষের জন্য অতি ক্ষুদ্র পদক্ষেপ; কিন্তু মানবজাতির জন্য এক বিরাট অগ্রযাত্রা”। তেমনি আবুতালহার এই ক্ষুদ্র পদক্ষেপ হতেও পারে মানবজাতির জন্য এক বিরাট অগ্রযাত্রা।

এ প্রযুক্তি কীভাবে কাজ করবে?

আবুতালহা ও তাঁর দল একটি ডিভাইস তৈরি করবে যেটি হবে যেকোনো ইন্টারনেট মডেমের মত। যা হবে সৌরশক্তি সম্পন্ন। ডিভাইসটি মাধ্যম হিসেবে কাজ করবে। ধরুন দুজন ব্যক্তি একে অন্যকে মেসেজ পাঠাবে। তাহলে ১ম ও ২য় উভয় ব্যক্তির ফোনে BrigaidNet অ্যাপটি ডাউনলোড থাকতে হবে। তাহলে ওই অ্যাপটি ব্যবহার করে ১ম ব্যক্তি ২য় ব্যক্তিকে মেসেজ পাঠাতে পারবে, যদিনা তারা ওই ডিভাইসের আওতায় থাকে। ডিভাইসটি একটি নিদৃস্ট অঞ্চল কভার করতে পারবে।

এমন একটি ডিভাইস থাকবে, যার মাধ্যমে তথ্য আদান প্রদান হবে

তবে প্রত্যেক অ্যাপ সম্বলিত ফোনও মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হবে। ধরুন ১ম ব্যক্তিটি ৩য় আরেকজনকে মেসেজ পাঠাবে এবং ৩য় ব্যক্তিটি ২য় ব্যক্তি থেকে দূরবর্তী স্থানে অবস্থিত, সেক্ষেত্রে ২য় ব্যক্তির মোবাইল মাধ্যম হয়ে ৩য় ব্যক্তির নিকট মেসেজ পৌঁছাতে সক্ষম। দূরবর্তী স্থানে মেসেজ প্রদান করতে মডেম বা ডিভাইসটি অথবা অন্য একটি বা একাধিক মোবাইল মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে; যে মাধ্যমটি শক্তিশালী সিগনাল প্রদান করবে সিস্টেম স্বয়ংক্রিয়ভাবে সে সিস্টেমই গ্রহণ করবে।

আবুতালহা আলমদের এ প্রযুক্তিটি ইতোমধ্যে পরিক্ষিত হয়েছে।

Project overview

প্রজেক্টের ইতিহাস ও অর্জন

আবুতালহা আলম প্রজেক্টটি শুরু করে তাঁর কো-ফাউন্ডার বাস্তিয়েন সাইদির সাথে। এরপর প্রজেক্টটি Irish Student Entrepreneurship Forum (ISEF) এ প্রদর্শিত হয় এবং প্রজেক্টটি তীব্র প্রতিযোগিতা কাটিয়ে সেমিফাইনালে উন্নীত হয়। তারা সেমিফাইনালেও চমক দেখিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নেয়। আগামী ১১ই এপ্রিল ২০২৪ তারিখে ডাবলিনে ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। ফাইনালে উন্নীত হতে পারলে এ প্রজেক্ট এগিয়ে যাবে অনেকদূর।

তবে ISEF এর ফাইনালে যদি তারা নাও উন্নীত হয় তারপরেও তারা এ প্রজেক্টটির কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। কারণ উদ্ভাবনীটি ইতিমধ্যে পরিক্ষিত ও গৃহীত হয়েছে।

কো-ফাউন্ডারের সাথে আবুতালহা আলম

শুধু তাই নয়, তাঁরা এই এপ্রিলের ৮ তারিখে আরেকটি প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করবে। Enactus আয়োজিত এ প্রদর্শনীটি অনুষ্ঠিত হবে গ্রেট ব্রিটিনের লন্ডনে। Enactus হচ্ছে “Entrepreneurial, Action, Us.”, Enactus” এর উদ্দেশ্য হচ্ছে ছাত্রছাত্রীদের ক্লাসরুমের শিক্ষা ও উদ্ভাবনীকে বাস্তুবে রূপ দেয়া, লিডারশিপ, টিমওয়ার্ক ও সামাজিক কার্যক্রমে ভূমিকা রাখতে সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান।

Enactus এর প্রদর্শনীতে জিততে পারলে তাঁরা তাঁদের প্রজেক্টের জন্য ফান্ডিং, NGO নেটওয়ার্কসহ নানামুখী সমর্থন পাবে।

এরপর তাঁরা NovaUCD Student Enterprise Programme এ অংশ নিবে। এতে জিততে পারলে তাঁরা ৩০০০ ইউরো পুরস্কার পাবে।

উপরোক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা বা কম্পিটিশনের ফলে তাঁদের কমিউনিকেশন ও নেটওয়ার্কিং বৃদ্ধি পাচ্ছে ও পাবে। এছাড়াও প্রতিযোগিতায় জিততে পারলে তাঁদের BrigaidNet প্রজেক্ট নিয়ে স্বপ্নের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছার রাস্তা অনেক মসৃণ হয়ে যাবে।

BrigaidNet এর গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে ও প্রতিযোগিতায় জিততে সহায়তা করতে তাঁরা একটি পোর্টাল চালু করেছে। যেখানে সবাই সাইন আপ করতে পারেন। যত বেশি সাইন আপ হবে তাঁরা তা প্রতিযোগিতায় দেখাতে পারবেন। সবাই দয়া করে নিম্নোক্ত লিংকে গিয়ে সাইন আপ করে আবুতালহা আলমকে প্রতিযোগিতায় জিততে সহায়তা করুন। শুধুমাত্র ইমেইল অ্যাড্রেস দিলেই হবে।

শুধু ইমেইল অ্যাড্রেস দিয়ে সাইন আপ লিংকে ক্লিক করে সাইন আপ করুনঃ http://www.brigaidnet.com

পরবর্তী পদক্ষেপ

ISEF এবং Enactus প্রজেক্টের শেষে তাঁরা কাজ শুরু করবে ডিভাইসের হার্ডওয়ার প্রস্তুতি ও অ্যাপ ডেভেলপমেন্টে। হার্ডওয়ার ও অ্যাপ এর কাজ শেষ হলে তাঁরা ফান্ডের সংগ্রহের চেষ্টা করবে। ইতিমধ্যে কয়েকটি NGO ও কোম্পানি তাঁদেরকে ফান্ড প্রদানের আশ্বাস প্রদান করে।

সর্বশেষ তাঁরা বাংলাদেশে ক্রমান্বয়ে ডিভাইস প্রতিস্থাপন ও কার্যক্রম শুরুর জন্য কাজ শুরু করবে। বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু করতে তাঁরা সরকারি অথবা প্রাইভেটভাবে চেষ্টা করবে, যেভাবে সম্ভব ও সহজসাধ্য হয়। তাঁরা ইতিমধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে কথা বলা শুরু করেছেন।

আবুতালহার স্বপ্ন অনেক বড়। বাংলাদেশের পাশাপাশি এশিয়ার অন্যান্য দেশেরও তাঁর প্রযুক্তি পৌঁছে দেয়ার একান্ত ইচ্ছা তাঁর।

সেকেন্ডারি স্কুলে থাকাবস্থায় জিতে নেন TECS নামক সন্মানজনক প্রথম স্থানের পুরস্কার।

আবুতালহা আলমের অর্জনসমূহ

কথায় আছে উঠতি মূলা পত্তনেই চেনা যায়। আবুতালহা আলম তেমনি একজন। তাঁর এই প্রজেক্টের আগেও তাঁর ছিল বিভিন্ন ক্ষেত্রে অর্জন ও পদচারনা। স্কুলে থাকা অবস্থায়ই আবুতালহার ছিল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উপর আগ্রহ। তাঁর সেকেন্ডারি স্কুলে থাকাবস্থায় জিতে নেন TECS নামক সন্মানজনক প্রথম স্থানের পুরস্কার। TECS প্রোগ্রাম হচ্ছে সমগ্র আয়ারল্যান্ডের মেধাবী শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, ইঞ্জিনিয়ারিং ও ক্রিয়েটিভিটি বিষয়ক প্রোগ্রাম। ২০২১ সালের এই প্রতিযোগিতায় সাইন ল্যাঙ্গুয়েজের বিষয়ে অংশ নিয়ে প্রথম স্থান অর্জন করে আবুতালহা ২০০০ ইউরোর সন্মাননা বুঝে নেয় ২০২২ সালে অনুষ্ঠিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে। অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয় ইউনিভার্সিটি অফ লিমেরিকে।

এই লিংকে ক্লিক করলে সরাসরি এ্যাওয়ার্ডের তথ্য ও আবুতালহার অর্জন দেখতে পাবেন (ছবি ও ভিডিও) TECH Award

এ প্রতিযোগিতায় জিতে তাঁর সামনে খুলে যায় সম্ভাবনার দুয়ার। যার ফলে তাঁর তৈরি হয় নেটওয়ার্কিং, সে অর্জন করে বিভিন্ন মেন্টরশিপ এবং সমমনা অন্যান্যদের সাথে তৈরি হয় যোগাযোগ।

Abutalha Alam

এছাড়াও তিনি প্রযুক্তির উপর অনেক ভলান্টারি কাজ করেন, পাইথনের উপর শিক্ষা প্রদান করেন এবং কাজ করেন স্টুডেন্ট অ্যাম্বাসেডর হিসেবেও। তবে তাঁর কোনো অবদানই বৃথা যায়নি। যার ফলে তিনি অর্জন করেন বেশ কিছু স্বীকৃতি ও অ্যাওয়ার্ড। তন্মদ্ধে সামজিক অবদানের জন্য UCD Social Sciences Student Award, the UCD Advantage Award, এবং “Future CTO of the Year” Undergraduate of the Year Awards ক্যাটাগরিতে ফাইনালিস্ট হন।

UCD Social Sciences Student Award AbuTalha

এছাড়া বর্তমানে International Student Entrepreneurship Forum (ISEF) এর ফাইনালে অংশ নিতে যাচ্ছেন ১১ই এপ্রিল। এবং ৮ই এপ্রিল যাচ্ছেন Enactus এর প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে লন্ডনে। কয়দিন পর হয়তো আবুতালহার ঝুলিতে আমরা দেখতে পাবো আরো কিছু অর্জন।

কে এই ক্ষুদে বিজ্ঞানী?

লিমেরিক নিবাসী জনাব জাহাঙ্গীর আলম হচ্ছেন আবুতালহা আলমের গর্বিত পিতা এবং জনাবা তমিনা আক্তার হচ্ছেন এই বিস্ময় বালকের রত্নগর্ভা মাতা। জনাব জাহাঙ্গীর আলম দীর্ঘদিন লিমেরিকে বসবাস করে আসতেছেন। তিন ভাই বোনের মধ্যে আবুতালহা আলম হচ্ছেন সর্বজ্যেষ্ঠ। তাঁর ছোট ভাই হচ্ছেন আবুজোবায়ের আলম ও সর্বকনিষ্ঠ হচ্ছেন একমাত্র বোন সোফিয়া আলম। লিমেরিকে বসবাসরত জনাব নজরুল ইসলামের ভাতিজা হচ্ছেন আবুতালহা আলম।

পরিবারের সাথে আবুতালহা আলম

আবুতালহা আলম লিমেরিকের ক্যাসলট্রয় কলেজ থেকে লিভিং চার্ট সম্পন্ন করে বর্তমানে ইউনিভার্সিটি কলেজ ডাবলিন (UCD) তে অধ্যয়নরত। তিনি Computational Social Science নামক একটি ইউনিক সাবজেক্টে পড়ালেখা করতেছেন, যে বিষয়টি কম্পিউটার সাইন্স, সোশিয়লজি ও ইকোনমিক্স এর সমন্বয়ে ঘটিত।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সাথে অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন তিনি। এর মাধ্যমে তিনি জনকল্যাণ সাধন করতে চান। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে মানুষের কল্যাণে কাজে লাগানোর প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন তিনি।

পড়ালেখা ও উদ্ভাবনী কাজ এর পাশাপাশে ভ্রমণ হচ্ছে আবুতালহার অন্যতম শখ। ইতিমধ্যে ঘুরে ফেলেছেন অনেকগুলো দেশ। কখনো একা, কখনো বন্ধুবান্ধব, কখনো পরিবারকে সাথে নিয়ে ঘুরে আসেন অজানা কোনো জায়গা।

আবুতালহা আলমের বাবা মা ছেলেকে নিয়ে অনেক গর্বিত। তাঁদের ছেলের বুদ্ধিমত্তা ও পরিবারের প্রতি তাঁর ভালোবাসার কথা অকপটে ব্যাক্ত করেন। খুব অল্প বয়সেই আবুতালহা অনেক গুরুদায়িত্ব বহন করে চলেছেন। ছেলের এ কৃতিত্বে বাবা মা ও চাচা সবাই অনেক খুশি। আবুতালহার জন্য সবার কাছে তাঁর পরিবার দোয়া কামনা করেন।

সাইন আপ করুন

আবু তালহার প্রজেক্টে সহযোগিতার জন্য সাইন আপ করুন। এতে সামনে এগিয়ে যাওয়ার পথ আরো সুগম হবে। হয়তো আবুতালহার মাধ্যমেই আমরা দেখতে পাব আরেকজন জগদীশচন্দ্র বসু, আরেকজন কুদারত-এ-খুদা।

শুধু ইমেইল অ্যাড্রেস দিয়ে সাইন আপ লিংকে ক্লিক করে সাইন আপ করুনঃ http://www.brigaidnet.com

আগামীর বিজ্ঞানী
Facebook Comments Box