আবাই নির্বাচন-২০২২ এর তফসিল ঘোষণা

0
39

আজ ১০ই জুন ২০২২ রোজ শুক্রবার অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন আয়ারল্যান্ড ”আবাই” এর নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রদান নির্বাচন কমিশনার কাউন্সিলর জনাব আজাদ তালুকদারের সভাপতিত্বে এই তফসিল ঘোষণা করা হয়। তফসিলে আগামী ১১ই সেপ্টেম্বর ২০২২ তারিখে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয়।

জনাব আজাদ তালুকদার নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রদান করে ও তফসিল পাঠ করে শোনান। আজকের সভায় নির্বাচনী বিধিমালা পেশ করায় হয়েছে এবং উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্ন উত্তর প্রদান করেন নির্বাচন কমিশনারগণ।

আজকের সভায় নির্বাচন কমিশনারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর আজাদ তালুকদার, জাকারিয়া প্রধান, মিজানুর রহমান জাকির, আশরাফ চৌধুরী শিবলি, মনিরুল ইসলাম বাবু, মোহাম্মদ শামিম কবির, মাজহারুল হক ঝিনুক, ফয়জুল্লাহ শিকদার এবং ওমর ফারুক নিউটন।

এছাড়া মিডিয়া থেকে উপস্থিত ছিলেন আইরিশ বাংলা টাইমস থেকে মশিউর রহমান ও নাসির খান এবং সময় টিভি থেকে সৈয়দ জুয়েল। আইরিশ বাংলা টাইমস সম্পূর্ণ অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে।

আজকের সভায় উত্থাপিত নির্বাচনী তফসিল ও পদসমূহ, বিজ্ঞপ্তি ও নির্বাচনী বিধিমালা নিম্নোক্ত প্রকাশ করা হল। এটাই নির্বাচন কমিশনের আবাই ২০২২ সাধারণ নির্বাচনের অফিশিয়াল তফসিল। 

নির্বাচনী তফসিল-২০২২ 

এতদ্বারা বাংলাদেশী কমিউনিটি আয়ারল্যান্ডের সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বিগত ২৩-০৫-২০২২ খ্রিঃ তারিখে অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন আয়ারল্যান্ড এর সম্মানিত উপদেষ্টা পরিষদ ও নির্বাচন কমিশনারদের সমন্বয়ে এক যৌথ আলোচনা সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ১১-০৯-২০২২ খ্রিঃ তারিখ রোজ রবিবার সকাল ০৯:০০ ঘটিকা হতে বিকাল ০৪:০০ ঘটিকা পর্যন্ত অনুষ্ঠিতব্য ‘’অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন আয়ারল্যান্ড’’ এর সাধারণ নির্বাচন-২০২২ উপলক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত সভায় অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনের জন্য নিম্নোক্ত তফসিল ঘোষণা করা হয়।

১। ১০-০৬-২০২২ খ্রিঃ তফসিল ঘোষণা করার পর থেকে ২৪-০৬-২০২২ খ্রিঃ, ১২:০০ (মধ্যরাত) পর্যন্ত মনোনয়নপত্র বিক্রি করা হবে।
২। ২৬-০৬-২০২২ খ্রিঃ থেকে ০২-০৭-২০২২ খ্রিঃ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা নেয়া হবে।
৩। ০৩-০৭-২০২২ খ্রিঃ থেকে ০৬-০৭-২০২২ খ্রিঃ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে।
৪। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ধার্য করা হয়েছে ১১-০৭-২০২২ খ্রিঃ। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার ক্ষেত্রে, ২৫.০০ ইউরো অফেরতযোগ্য।

অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন আয়ারল্যান্ড নির্বাচনী প্রস্তাবিত পদসমূহ 

 ক্রমানুসারে পদের নাম   পদের সংখ্যা  ফী
সভাপতি € ১০০০
সহকারী সভাপতি € ৫০০
সাধারণ সম্পাদক € ৯০০
সহকারী সাধারণ সম্পাদক € ৪০০
সাংগঠনিক সম্পাদক € ৪০০
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক € ৩০০
কোষাধক্ষ € ৪০০
সহকারী কোষাধক্ষ € ২০০
দপ্তর সম্পাদক € ২৫০
১০ প্রকাশনা সম্পাদক € ২৫০
১১ সহকারী প্রকাশনা সম্পাদক € ২০০
১২ সাংস্কৃতিক সম্পাদক € ২৫০
১৩ সহকারী সাংস্কৃতিক সম্পাদক € ২০০
১৪ ক্রীড়া সম্পাদক € ২৫০
১৫ ধর্মীয় সম্পাদক € ২৫০
১৬ সহকারী ধর্মীয় সম্পাদক € ২০০
১৭ মহিলা কল্যাণ সম্পাদক € ২৫০
১৮ সহকারী মহিলা কল্যাণ সম্পাদক € ২০০
১৯ আইটি সম্পাদক € ২৫০
২০ সমাজকল্যান সম্পাদক € ২৫০
২১ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক € ২৫০

 

তফসিলে স্বাক্ষর প্রদান করেন
নির্বাচন কমিশনের পক্ষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার জনাব আজাদ তালুকদার

প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

আয়ারল্যান্ডে বসবাসরত সকল বাংলাদেশী বংশদ্ভুত ভাই ও বোনেরা, বিনম্র চিত্তে আমার সালাম গ্রহণ করুন। আপনারা অবগত আছেন যে, আয়ারল্যান্ড ভিত্তিক বাংলাদেশী কমিনিটির কেন্দ্রীয় সংগঠন হচ্ছে ‘’অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব আয়ারল্যান্ড’’। সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নির্বাচন কমিশন আগামী ১১ই সেপ্টেম্বর রোজ রবিবার ‘’অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব আয়ারল্যান্ড’’ এর সাধারণ নির্বাচন-২০২২ এর দিন ধার্য করেছে। আমি আজাদ তালুকদার, উক্ত নির্বাচনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রদান করতেছি।

আয়ারল্যান্ডে বাংলাদেশ কমিউনিটিকে আরো সমৃদ্ধ ও শক্তিশালী করতেই ‘’অল বাংলাদেশী এসোসিয়েশন অব আয়ারল্যান্ড’’ এর সূচনা এবং আয়ারল্যান্ডে বসবাসরত সকলের মনোনীত প্রার্থী দ্বারাই পরিচালিত হবে এই সংঘঠন। তারই ধারাবাহিকতায় আসছে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। যেখানে আপনারাই (ভোটার) নির্বাচিত করবেন যোগ্য নেতা, যাদের নেতৃত্বে সুফল বয়ে আনবে কমিউনিটির। সুতরাং সবার কাছে অনুরোধ আপনারা নির্বাচনের আগে নিদৃস্ট সময়ের মধ্যে ভোটার নিবন্ধন করে স্বতঃস্পূর্তভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে আপনার মূল্যবান ভোট প্রদান করে যোগ্য নেতা নির্বাচন করুন।

তার সাথে আপনারা যারা পরিবর্তনে ভূমিকা রাখতে চান, এগিয়ে আসতে চান কমিউনিটির কল্যাণে এবং যদি মনে করেন আপনার উপস্থিতি কমিউনিটির জন্য উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে তাহলে আপনাদের কাছেও বিনীত অনুরোধ যে নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে দশের সেবায় এগিয়ে আসার জন্য। কারণ সংগঠনের মাধ্যমে আপনি পারবেন বৃহৎ কল্যাণে ভূমিকা রাখতে।

সেই সাথে আমি সহায়তা কামনা করি আপনাদের সকলের, যাতে করে একটি সুষ্ঠু, সুন্দর, নিরপেক্ষ, সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ও সফল নির্বাচন উপহার দিতে পারি। আপনাদের সহায়তাই আমাদের শক্তি।

আমি ধন্যবাদ জানাই সবাইকে, যারা এতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করে নির্বাচনের প্রাথমিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন এবং করে যাচ্ছেন। সবার অব্যাহত সহযোগিতায় একটি সফল নির্বাচন উপহার দেয়া সম্ভবপর হবে বলে আমার বিশ্বাস।

নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে স্বাক্ষর প্রদান করেন
কাউন্সিলর আজাদ তালুকদার

নির্বাচনী বিধিমালা-২০২২ 

প্রদত্ত ক্ষমতাবলের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন নিম্নরূপ বিধিমালা প্রণয়ন করিল, যথাঃ-

মনোনীত প্রার্থীর জন্য বিধিমালা

১। প্রত্যেক প্রার্থীকে অবশ্যই ২৪-০৬-২০২২ খ্রিঃ তারিখের মধ্যে স্থানীয় নির্বাচন কমিশনারের নিকট হইতে নির্ধারিত ফী পরিশোধের মাধ্যমে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করিতে হইবে। প্রার্থী অথবা প্রার্থীর মনোনীত ব্যক্তি দ্বারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা যাইবে।
২। যেই সব পদে কোন প্রার্থী থাকিবে না, সেই সব পদ পরবর্তী কমিটি দ্বারা পূর্ণ হইবে। যেই সব পদে কোন প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী থাকিবে না, সেই পদের প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী ঘোষণা করা হইবে।
৩। নির্বাচনে কোন প্যানেলভিত্তিক প্রচারণা চালানো যাইবেনা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা সরাসরি, সর্বাবস্থায়ই প্যানেলভিত্তিক প্রচারণা সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ।
৪। নির্বাচনের দিন এবং নির্বাচনের আগেরদিন কোন প্রকার নির্বাচনী প্রচারণা চালানো যাইবেনা। ভোটকেন্দ্রে প্রার্থী অথবা প্রার্থীর অনুসারীদের প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা জারি থাকিবে।
৫। ভোটকেন্দ্রে নির্বাচনী কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, নির্বাচনী এজেন্ট, নির্বাচনী পর্যবেক্ষক, কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত ব্যক্তিবর্গ এবং ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গদিগেরই প্রবেশাধিকার থাকিবে। কোন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর কর্মীগণ ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ অথবা ভোটকেন্দ্রে অভ্যন্তরে ঘোরাফেরা করিতে পারিবেন না। পোলিং এজেন্টগণ তাহাদের জন্য নির্ধারিত স্থানে উপবিষ্ট থাকিয়া তাহাদের নিদৃস্ট দায়িত্ব পালন করিবেন।
৬। নির্বাচনী প্রচারণায় কাহারো ব্যক্তিগত চরিত্র হনন করিয়া কোন ধরণের তিক্ত, উসকানিমূলক, মানহানিকর কিংবা লিঙ্গ, সাম্প্রদায়িক এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কোন বক্তব্য প্রদান করা যাইবে না।
৭। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সবাই একে অন্যের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখিবেন। একে অন্যেকে আক্রমণাত্মক কথা এবং শারীরিক আক্রমণ থেকে বিরত থাকিতে হইবে, অন্যথায় উপযুক্ত প্রমাণের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন অভিযুক্ত প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল করিতে বাধ্য থাকিবে।
৮। নির্বাচনী প্রচারণায় এবং নির্বাচনকে ঘিরে যে কেহ যে কোন ধরণের আর্থিক লেনদেনে জড়িত হইতে পারিবেন না।
৯। প্রত্যেক প্রার্থীকে তাহার মনোনীত পোলিং এজেন্টের নাম নির্বাচনের আগে প্রদান করিতে হইবে। একই কেন্দ্রে একাধিক পোলিং এজেন্ট কিংবা মনোনীত পোলিং এজেন্ট ছাড়া অন্য কাউকে পোলিং এজেন্টের দায়িত্ব দেওয়া যাইবে না।
১০। কোন প্রার্থী নির্বাচনী বিধিমালা অমান্য বা লঙ্ঘন করিলে অথবা কোন কমিশনারের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হইলে নির্বাচন কমিশন উপযুক্ত প্রমাণের ভিত্তিতে উক্ত প্রার্থীকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বিরত রাখিতে পারিবে।

ভোটারদের জন্য বিধিমালা

১। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে আয়ারল্যান্ডে বসবাসরত সকল বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ভোটার হইতে পারিবেন। বাংলাদেশী নাগরিক নহে কিন্তু পরিবারবর্গের কেহ বাংলাদেশী নাগরিক হইলে তাহারা ভোটার হওয়ার যোগ্য হইবে।
২। একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য সবাইকে ভোটার হওয়া আবশ্যকীয়। নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অবশ্যই ভোটার নিবন্ধন সম্পন্ন করিতে হইবে, অন্যথায় ভোট দেয়ার অনুমতি প্রদান করা হইবে না।
৩। ভোটার নিবন্ধনে পরিচয়পত্র অনুযায়ী সম্পূর্ণ নাম ব্যবহার করিতে হবে। ভোটার তালিকার সাথে পরিচয় পত্রের নাম না মিলিলে ভোটারকে ভোট প্রদানে বিরত রাখিতে বাধ্য থাকিবে।
৪। নির্বাচনের দিন প্রত্যেক ভোটারকে তাহাদের নিজ নিজ দায়িত্বে ভোটকেন্দ্রে উপস্থিত হইতে হইবে। ভোটকেন্দ্রের ঠিকানা নির্বাচন পূর্ববর্তী সময়ে জানাইয়া দেওয়া হইবে।
৫। ভোটারদেরকে অবশ্যই ভোটকেন্দ্রের শৃঙ্খলা বজায় রাখিয়া চলিতে হইবে। যে কোন ধরণের বিশৃঙ্খলা কর্তব্যরত ব্যক্তিবর্গের দ্বারা রহিত করা হইবে। অতিরিক্ত ভিড় এড়াতে ভোট প্রদান শেষে প্রত্যেক ভোটারকে ভোটকেন্দ্র ত্যাগ করিতে হইবে।

নির্বাচন কমিশনারদের জন্য বিধিমালা

১। কোন নির্বাচন কমিশনারের নির্বাচন বহির্ভূত আচরণ অথবা অন্য কোন ব্যক্তিগত কাজের দায়ভার নির্বাচন কমিশন বহন করিবে না। তবে কোন নির্বাচন কমিশনার নির্বাচনী আইন বিধি লঙ্ঘন করিলে প্রার্থী তাহার উপযুক্ত প্রমাণ সহ লিখিতভাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নিকট অভিযোগ পত্র পেশ করিতে পারিবেন। উক্ত অভিযোগ তদন্ত সাপেক্ষে দোষী প্রমাণিত হইলে উপদেষ্টা পরিষদ এবং নির্বাচন কমিশনের সমন্বয়ে তাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে।
২। নির্বাচনী মনোনয়ন পত্রের ফী নির্বাচনের ব্যয়ের পর অতিরিক্ত অর্থ (যদি থাকে) এসোসিয়েশনের তহবিলে জমা দেওয়া হইবে।

আজকের সভায় উত্থাপিত বিবিধ বিষয়াবলীঃ 

– সবাইকে ভোটার হওয়ার আহ্বান। ভোটারদের www.abai.ie ওয়েবসাইট থেকে রেজিস্ট্রেশন করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।
– ভোটার রেজিস্ট্রেশনসহ যে কোন ধরণের সমস্যার ব্যাপারে ভোটারদেরকে প্রত্যেক কাউন্টির লোকাল নির্বাচন কমিশনারদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য জানানো হয়।
– নির্বাচন কমিশন সবার স্বতঃস্পূর্ত সহযোগিতা কামনা করেন।
– নির্বাচন কমিশন সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার ইতি টানেন।

Facebook Comments Box